সাতক্ষীরা ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

টানা ১৫ হারের লজ্জা ঢাকতে বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচটা জিততে চায় বাংলাদেশ

পিসিবার্তা ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ১২:০৫:৪৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ১২২ বার পঠিত

দক্ষিণ আফ্রিকায় চলমান নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পরাজয়ই সঙ্গী হয়েছে বাংলাদেশের। আগামীকাল মঙ্গলবার তারা শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার। গ্রুপ পর্বে প্রথম তিন ম্যাচ হেরে যাওয়ায় ইতোমধ্যে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়েছে নিগার সুলতানার দলের। তবে হারের বৃত্ত ভেঙ্গে জয় দিয়ে তারা বিশ্বকাপ শেষ করতে চায়। কেপ টাউনে বাংলাদেশ সময় রাত ১১টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

বিশ্বকাপের আগের চার আসরে অংশ নিয়ে মোট ১৭টি ম্যাচ খেলে মাত্র ২টিতে জয় ও ১৫টিতে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ। এবার দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ভালো কিছু করার স্বপ্ন নিয়ে পঞ্চমবারের মতোঁ বিশ্বকাপ খেলতে নামে টাইগ্রেসরা। কিন্তু গ্রুপ পর্বের প্রথম তিন ম্যাচেই হারতে হয়েছে। প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছে ৭ উইকেটে হার। বাংলাদেশের ৮ উইকেটে ১২৬ রান ৭ উইকেট হাতে রেখেই টপকে যায় লঙ্কানরা।
দ্বিতীয় ম্যাচে অধিনায়ক নিগার সুলতানার হাফ-সেঞ্চুরির সত্বেও অন্যান্য ব্যাটারদের ব্যর্থতায় হার বরণ করতে হয় বাংলাদেশকে। শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারতে হয় ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১০৭ রানের মামুলি সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। এরমধ্যে নিগার ৫০ বলে ৫৭ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন। জবাবে ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া।

তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে নিগার সুলতানারা পাত্তাই পায়নি। ব্যাটারদের ব্যাটিং তাণ্ডবে কিউইরা ৩ উইকেটে ১৮৯ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়েছিল। জবাবে ৮ উইকেটে ১১৮ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। ৭১ রানের পরাজয়ে গ্রুপ পর্ব থেকেই তাদের বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায়। এটা ছিল বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মেয়েদর টানা ১৫তম হার! শেষ ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে এই রেকর্ড ভাঙতে চান নিগার সুলতানারা। কিন্তু কাজটা বড্ড কঠিন্

বাংলাদেশকে হারালেই সেমিফাইনালের টিকিট পাবে দক্ষিণ আফ্রিকা। এজন্য প্রোটিয়ারা জয় ছাড়া অন্যকিছুই ভাবছে না। দুই দলের মুখোমুখি পরিসংখ্যানও বাংলাদেশের বিপক্ষে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত ১০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকা। এরমধ্যে বাংলাদেশের জয় ১টিতে ও প্রোটিয়াদের জয় ৯টিতে। একমাত্র জয়টি এসেছিল ২০১২ সালে মিরপুর শেরে বাংলায় দুই দলের প্রথম দেখায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

টানা ১৫ হারের লজ্জা ঢাকতে বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচটা জিততে চায় বাংলাদেশ

আপডেট সময় : ১২:০৫:৪৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

দক্ষিণ আফ্রিকায় চলমান নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পরাজয়ই সঙ্গী হয়েছে বাংলাদেশের। আগামীকাল মঙ্গলবার তারা শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার। গ্রুপ পর্বে প্রথম তিন ম্যাচ হেরে যাওয়ায় ইতোমধ্যে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়েছে নিগার সুলতানার দলের। তবে হারের বৃত্ত ভেঙ্গে জয় দিয়ে তারা বিশ্বকাপ শেষ করতে চায়। কেপ টাউনে বাংলাদেশ সময় রাত ১১টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

বিশ্বকাপের আগের চার আসরে অংশ নিয়ে মোট ১৭টি ম্যাচ খেলে মাত্র ২টিতে জয় ও ১৫টিতে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ। এবার দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ভালো কিছু করার স্বপ্ন নিয়ে পঞ্চমবারের মতোঁ বিশ্বকাপ খেলতে নামে টাইগ্রেসরা। কিন্তু গ্রুপ পর্বের প্রথম তিন ম্যাচেই হারতে হয়েছে। প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছে ৭ উইকেটে হার। বাংলাদেশের ৮ উইকেটে ১২৬ রান ৭ উইকেট হাতে রেখেই টপকে যায় লঙ্কানরা।
দ্বিতীয় ম্যাচে অধিনায়ক নিগার সুলতানার হাফ-সেঞ্চুরির সত্বেও অন্যান্য ব্যাটারদের ব্যর্থতায় হার বরণ করতে হয় বাংলাদেশকে। শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারতে হয় ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১০৭ রানের মামুলি সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। এরমধ্যে নিগার ৫০ বলে ৫৭ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন। জবাবে ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া।

তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে নিগার সুলতানারা পাত্তাই পায়নি। ব্যাটারদের ব্যাটিং তাণ্ডবে কিউইরা ৩ উইকেটে ১৮৯ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়েছিল। জবাবে ৮ উইকেটে ১১৮ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। ৭১ রানের পরাজয়ে গ্রুপ পর্ব থেকেই তাদের বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায়। এটা ছিল বিশ্বকাপে বাংলাদেশের মেয়েদর টানা ১৫তম হার! শেষ ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে এই রেকর্ড ভাঙতে চান নিগার সুলতানারা। কিন্তু কাজটা বড্ড কঠিন্

বাংলাদেশকে হারালেই সেমিফাইনালের টিকিট পাবে দক্ষিণ আফ্রিকা। এজন্য প্রোটিয়ারা জয় ছাড়া অন্যকিছুই ভাবছে না। দুই দলের মুখোমুখি পরিসংখ্যানও বাংলাদেশের বিপক্ষে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত ১০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকা। এরমধ্যে বাংলাদেশের জয় ১টিতে ও প্রোটিয়াদের জয় ৯টিতে। একমাত্র জয়টি এসেছিল ২০১২ সালে মিরপুর শেরে বাংলায় দুই দলের প্রথম দেখায়।