সাতক্ষীরা ১০:৫৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ফুল না দেওয়ায় ইউএনওর সামনে শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভয়েস অব আমেরিকার সংবাদ কণ্ঠ দিলারা হাসেম আসামের কামরূপ এবং মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জী ভ্রমণ বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারে বাড়তি চার্জ : প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিট স্মার্ট বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় হবে ১২,৫০০ ডলার : সংসদে অর্থমন্ত্রী স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে বেসরকারি নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও করণ খাতে বরাদ্দ! সাবেক পুলিশ প্রধান বেনজিরের স্পেনে সেকেন্ড হোম, তুরস্কে নাগরিকত্ব সাতক্ষারা সরকারি কলেজ রোড পুনঃনির্মাণের দাবীতে নাগরিক কমিটির সড়ক অবরোধ সাতক্ষীরার শিক্ষাকাশের উজ্জ্বল জ্যোতিষ্ক আব্দুল মোতালেব

ছুটে আসছে ঘূর্ণঝড় রেমাল। অনেকটা অরক্ষিতই উপকূলের জনজীবন!

পিসিবার্তা ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : ০১:০৭:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪ ২১২ বার পঠিত

আজ ২৫ মে, আইলা দিবস। ২০০৯ সালের এ দিনে সাতক্ষীরা, খুলনার উপকূলে আঘাত হানে আইলা। এ আঘাতে লন্ডভন্ড হয় সাতক্ষীরার উপকূলের গাবুরা, পদ্মপুকুর, দক্ষিণ ও উত্তর বেদকাশী সহ অনেকগুলো ইউনিয়ন। খুলনার কয়রা, বেতকাশি, গড়ইখালীসহ অনেক এলাকা মারাত্বক ক্ষতির মধ্য পড়ে।

আইলার ১৫ তম বছরে পা রেখ সেই একই দিনে আরেকটা দূর্ণিঝড়ের আতঙ্কের মধ্য সময় পার করছে উপকূলের মানুষ।  আবহাওয়া দপ্তর জানাচ্ছে আজ মধ্যরাতে সুন্দরবন উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে নূতন ঘূর্ণিঝড় রেমাল।

উপকূলে ত্রাণসহায়তা হিসেবে অনেক অর্থ এসছে এ সময়ের মধ্যে। সরকার ও দাতারা মিলে অনেক অর্থ ঢেলেছে উপকূলের উন্নয়ণে। কিন্তু কোন এক অজানা কারণে (!) উপকূলের মানুষ ও তাদের সম্পদ রয়েছে এখনও অরক্ষিত।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল

ঘূর্ণিঝড় রেমাল শক্তি বাড়িয়ে ইতিমধ্যেই গভীর নিম্নচাপ থেকে অতি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল (Cyclone Remal Update)। আবহাওয়া দফতরের (IMD) তরফে সতর্কতা জারি করে বলা হয়েছে, রেমালের সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৩০ কিলোমিটার। এর ফলে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলসহ ভারতের দিঘা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন উপকূলবর্তী এলাকায় সমুদ্রের বাঁধ ভাঙার আশঙ্কাও রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে বাংলাদেল ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকূল এলাকায়।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, আজ রবিবার ২৬ মে মাঝরাতে সাগর আইল্যান্ড থেকে বাংলাদেশের খেপুপাড়া ও সাগর দ্বীপের মাঝে আছড়ে পড়বে ঘূর্ণিঝড় রেমাল। এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে দুর্যোগের আশঙ্কা সুন্দরবনের উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতেও। এর মধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় ক্ষতির আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। ১০০ থেকে ১২০ কিলোমিটার গতিবেগে ঝড় এবং প্রবল বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে সেখানে। জলোচ্ছ্বাসের ফলে সমুদ্রের জল উপচে পড়ে বাঁধ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। উপকূলবর্তী এলাকায় আছড়ে পড়ার সময় এর সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৩০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়ের জেরে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলায়।

ঘূর্ণিঝড় আইলা

ঘূর্ণিঝড় আইলা হলো ২০০৯ সালে উত্তর ভারত মহাসাগরে জন্ম নেয়া দ্বিতীয় ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়টি জন্ম নেয় ২১ মে তারিখে, ভারতের কলকাতা থেকে ৯৫০ কিলোমিটার (৫৯০ মাইল) দক্ষিণে। ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে ২৫ মে তারিখে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশ ও ভারতের দক্ষিণ-পূর্বাংশে।

ঘূর্ণিঝড় আইলা বাংলাদেশের পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীর হাতিয়া, নিঝুম দ্বীপ, খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলায় জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে। ঘূর্ণিঝড়ে খুলনা ও সাতক্ষীরায় ৭১১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিধ্বস্থ হয়। ফলে খুলনার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন লোনা পানিতে তলিয়ে যায়। ৭৬ কিলোমিটার বাঁধ পুরোপুরি এবং ৩৬২ কিলোমিটার বাঁধ আংশিকভাবে ধ্বসে পড়ে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ছুটে আসছে ঘূর্ণঝড় রেমাল। অনেকটা অরক্ষিতই উপকূলের জনজীবন!

আপডেট সময় : ০১:০৭:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

আজ ২৫ মে, আইলা দিবস। ২০০৯ সালের এ দিনে সাতক্ষীরা, খুলনার উপকূলে আঘাত হানে আইলা। এ আঘাতে লন্ডভন্ড হয় সাতক্ষীরার উপকূলের গাবুরা, পদ্মপুকুর, দক্ষিণ ও উত্তর বেদকাশী সহ অনেকগুলো ইউনিয়ন। খুলনার কয়রা, বেতকাশি, গড়ইখালীসহ অনেক এলাকা মারাত্বক ক্ষতির মধ্য পড়ে।

আইলার ১৫ তম বছরে পা রেখ সেই একই দিনে আরেকটা দূর্ণিঝড়ের আতঙ্কের মধ্য সময় পার করছে উপকূলের মানুষ।  আবহাওয়া দপ্তর জানাচ্ছে আজ মধ্যরাতে সুন্দরবন উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে নূতন ঘূর্ণিঝড় রেমাল।

উপকূলে ত্রাণসহায়তা হিসেবে অনেক অর্থ এসছে এ সময়ের মধ্যে। সরকার ও দাতারা মিলে অনেক অর্থ ঢেলেছে উপকূলের উন্নয়ণে। কিন্তু কোন এক অজানা কারণে (!) উপকূলের মানুষ ও তাদের সম্পদ রয়েছে এখনও অরক্ষিত।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল

ঘূর্ণিঝড় রেমাল শক্তি বাড়িয়ে ইতিমধ্যেই গভীর নিম্নচাপ থেকে অতি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল (Cyclone Remal Update)। আবহাওয়া দফতরের (IMD) তরফে সতর্কতা জারি করে বলা হয়েছে, রেমালের সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৩০ কিলোমিটার। এর ফলে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলসহ ভারতের দিঘা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন উপকূলবর্তী এলাকায় সমুদ্রের বাঁধ ভাঙার আশঙ্কাও রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে বাংলাদেল ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকূল এলাকায়।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, আজ রবিবার ২৬ মে মাঝরাতে সাগর আইল্যান্ড থেকে বাংলাদেশের খেপুপাড়া ও সাগর দ্বীপের মাঝে আছড়ে পড়বে ঘূর্ণিঝড় রেমাল। এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে দুর্যোগের আশঙ্কা সুন্দরবনের উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতেও। এর মধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায় ক্ষতির আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। ১০০ থেকে ১২০ কিলোমিটার গতিবেগে ঝড় এবং প্রবল বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে সেখানে। জলোচ্ছ্বাসের ফলে সমুদ্রের জল উপচে পড়ে বাঁধ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। উপকূলবর্তী এলাকায় আছড়ে পড়ার সময় এর সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৩০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়ের জেরে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলায়।

ঘূর্ণিঝড় আইলা

ঘূর্ণিঝড় আইলা হলো ২০০৯ সালে উত্তর ভারত মহাসাগরে জন্ম নেয়া দ্বিতীয় ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়টি জন্ম নেয় ২১ মে তারিখে, ভারতের কলকাতা থেকে ৯৫০ কিলোমিটার (৫৯০ মাইল) দক্ষিণে। ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে ২৫ মে তারিখে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাংশ ও ভারতের দক্ষিণ-পূর্বাংশে।

ঘূর্ণিঝড় আইলা বাংলাদেশের পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, বরিশাল, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীর হাতিয়া, নিঝুম দ্বীপ, খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলায় জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে। ঘূর্ণিঝড়ে খুলনা ও সাতক্ষীরায় ৭১১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ বিধ্বস্থ হয়। ফলে খুলনার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন লোনা পানিতে তলিয়ে যায়। ৭৬ কিলোমিটার বাঁধ পুরোপুরি এবং ৩৬২ কিলোমিটার বাঁধ আংশিকভাবে ধ্বসে পড়ে।